Tuesday , 22 August 2017
Breaking News
Home / বিনোদন / ইতিহাসের নতুন অধ্যায়

ইতিহাসের নতুন অধ্যায়





ব্রিটিশ চলচ্চিত্র নির্মাতা ক্রিস্টোফার নোলান একই সঙ্গে পরিচালক, চিত্রনাট্যকার ও প্রযোজক। ইতিহাসের প্রবাদপ্রতিম নির্মাতাদের মধ্যে তিনি একজন। একবিংশ শতাব্দীর সফল নির্মাতাদের মধ্যে তিনি যেমন অগ্রগণ্য, তেমনি ব্যবসাসফল নির্মাতা হিসেবেও তার নাম এক নামে স্বীকার্য। ২০০০ সালে তার নির্মিত ‘মেমেন্টো’ ছবিটি অস্কারে সেরা চিত্রনাট্যের জন্য মনোনীত হয়। তার নির্মিত ‘ইনসোমনিয়া’ ও ‘দ্য প্রেস্টিজ’ ছবি দুটি বিশ্ব চলচ্চিত্রের অন্যতম দুই ছবি। তার নির্মিত ‘ইনসেপশন’ ছবির জন্য দ্বিতীয়বারের মতো সেরা চিত্রনাট্যকার হিসেবে অস্কারে মনোনয়ন লাভ করেন নোলান। ছবিটি সে বছর সেরা চলচ্চিত্র হিসেবে অস্কার লাভ করে। নির্মাতার ‘দ্য ডার্ক নাইট ট্রিলজি’ নিয়ে তেমন আলোচনা না হলেও, এর পরের ছবি ‘ইন্টারস্টেলার’ বিশ্বব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি করে। সর্বোচ্চ ৪.২ মিলিয়নেরও বেশি অর্থ উপার্জনের পাশাপাশি সমালোচকদের মনজয় করে নেয়। এখন পর্যন্ত অস্কারে সর্বোচ্চ ২৬টি বিভাগে মনোনয়ন লাভ করা ছবির নাম ‘ইন্টারস্টেলার’। সে বছর সর্বোচ্চ সাতটি বিভাগে অস্কার লাভ করে ছবিটি।

কিংবদন্তি এ নির্মাতার পরবর্তী ছবি ‘ডানকির্ক’ বিশ্বব্যাপী মুক্তি পাবে আগামীকাল। তার অন্যান্য ছবির মতো এ ছবির জন্যও অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন ভক্তকুল। একই সঙ্গে ছবিটির রচয়িতা, পরিচালক ও সহ-প্রযোজক ক্রিস্টোফার। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রেক্ষাপট নিয়ে নির্মিত এ ছবিটি নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করবে বলে সবার বিশ্বাস। ছবিটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফিওন হোয়াইটহেড, টম গ্গি্নন-কার্নি, জ্যাক লাওডেন, হ্যারি স্টাইলস, টম হার্ডি, অ্যানুইরিন বার্নাড, ব্যারি কিওগান, কেনেথ ব্রানাগ, সিলিয়ান মোর্ফি, মার্ক রিল্যান্স প্রমুখ তারকা।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার ডানকির্ক নির্বাসনের সেই ভয়ঙ্কর অধ্যায় এ ছবির মূল অধ্যায়। হিটলার সরকারের অন্যায় নির্দেশে জার্মান সেনা কর্তৃক নির্বাসনে পাঠানো ফ্রান্সের স্বজাতীয় যোদ্ধাদের দুই মাসের লোমহর্ষক অভিযান তুলে ধরা হয়েছে এ ছবিতে। ১৯৪০ সালের ২৬ মে থেকে ৪ জুন পর্যন্ত ঘটে যাওয়া সত্য ঘটনা অবলম্বনে ছবিটি নির্মিত। ছবিটি যৌথভাবে প্রযোজনা করছে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও নেদারল্যান্ডস।

ছবির গল্প গড়ে উঠেছে জার্মান সেনাদের হাতে বন্দি ব্রিটেন, কানাডা ও ফ্রান্সের স্বজাতীয় যোদ্ধাদের করুণ পরিণতি নিয়ে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রথম দিকে ডানকির্ক তীর থেকে ছোট স্টিমারে তাদের পাঠানো হয় অপারেশন ডায়নামো নামে রহস্যময় এক অভিযানে। ছবিতে ব্রিটিশ আর্মির চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফিওন হোয়াইটহেড, দুই মাসব্যাপী এ অভিযান পরিচালনার কাজে ন্যস্ত থাকেন তিনি। ছবির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন মার্ক রিল্যান্স, যে তার পুত্র পিটারসহ বন্দি হয়েছে জার্মানদের হাতে। তিনি ইমপেরিয়াল ওয়ার মিউজিয়াম থেকে গবেষণালব্ধ জ্ঞানের মাধ্যমে প্রতিদিন বেঁচে থাকার জন্য সেনাদের উদ্বুদ্ধ করেন। ছবিটি নিয়ে নোলান বলেন, ‘অন্য ব্রিটিশ নাগরিকদের মতো ডানকির্কের গল্প শুনেই আমার বেড়ে ওঠা। সে অর্থে এ ছবিটি আমার মেরুদণ্ড। প্রথম কার কাছ থেকে এর গল্প শুনেছিলাম, তাও মনে নেই। একজন ব্রিটিশ হিসেবে এ গল্পটি আমার অস্তিত্বেরই অংশ।’

এ ছবিটি নির্মাণের অনেক আগে ব্রিটিশ সৈন্যদের পার হওয়া এ ইংলিশ চ্যানেল একই সময়ে ছোট স্ট্রিমারে পার হয়েছিলেন নির্মাতা ক্রিস্টোফার নোলান। ২০ বছর আগের সে ভ্রমণ এ ছবি নির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে বলে জানান তিনি। মাসব্যাপী এ ভ্রমণ নিয়ে তিনি বলেন, ‘সমুদ্রের এ অংশটি সত্যিকার অর্থেই ভয়ঙ্কর এবং ঝুঁকিপূর্ণ। প্রতি মুহূর্তে প্রাণনাশের সম্ভাবনা টের পাওয়া যায়। তার ওপর যদি বিমান থেকে বোমা নিক্ষেপ করা হয়, তাহলে কোন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল, তা ভাবনারও অতীত। এ অত্যাচারই পরে হিটলার সরকারের পতন নিয়ে এসেছিল।’

প্রথমে ছবিটির চিত্রনাট্য লেখার পর তিনটি দৃষ্টিকোণ থেকে ছবিটি নির্মাণের কথা জানান ক্রিস্টোফার। ভূমি, সমুদ্র ও বায়ু। এ তিনটি দৃষ্টিকোণ থেকেই তিনি নির্মাণ করেন ছবিটি। ছোট ছোট সংলাপ ও প্রত্যেকটি দৃশ্যের ডিটেইল নিয়ে তিনি ভেবেছেন একান্তভাবে। ২০১৬ সালের মে মাসে ফ্রান্সে ছবিটির দৃশ্যধারণ শুরু হয় এবং শেষ হয় যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে। ছবির প্রতিটি দৃশ্য বাস্তবসম্মত করে তোলার জন্য দীর্ঘ সময় নিয়ে জাহাজ, বিমান ও যোদ্ধাদের সমরাস্ত্র ডিজাইন করেছেন তিনি। চলতি বছরের ১৩ জুলাই লন্ডনে ছবিটির প্রথম প্রিমিয়ার দেখার পর দর্শকদের অনুমান ‘সেভিং প্রাইভেট রিয়ান’ ছবির পর যুদ্ধের সবচেয়ে শক্তিশালী ছবি হবে নোলানের ‘ডানকির্ক’।

HTML tutorial


Check Also

কিংবদন্তি শাবানা এখন

কিংবদন্তি অভিনেত্রী শাবানা এখন ধর্ম-কর্মে বেশি মনযোগী। বড় পর্দার সেই শাবানার সঙ্গে এখনকার শাবানার এখন …